পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত

পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত

পতেঙ্গা বাংলাদেশের চট্টগ্রাম শহরের সমুদ্র সৈকত যা কর্ণফুলী নদীর মোহনায় অবস্থিত। বন্দর নগরী চট্টগ্রাম থেকে প্রায় ১৪ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থিত। পতেঙ্গা চট্টগ্রাম শহরের একটি জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র।

১৯৯১ সালের ঘূর্ণিঝড়ে এই সৈকতটি ভয়াবহ ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়। বর্তমানে সমুদ্র সৈকতে সিমেন্ট দিয়ে তৈরি করা বেড়ি বাঁধ দেয়া হয়েছে।

শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এবং বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর ঘাঁটি বিএনএস ঈসা খান পতেঙ্গার সন্নিকটে অবস্থিত। এছাড়া চট্টগ্রাম বন্দরের অনেক জেটি এইখানে অবস্থিত। এছাড়া জনপ্রিয় পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত ও বাংলাদেশ নেভাল একাডেমি এইখানে অবস্থিত

বাংলাদেশের অন্যতম জনপ্রিয় সমুদ্র সৈকতগুলোর মধ্যে একটি হলো পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত। চট্রগ্রাম শহরের কাছে এবং কর্ণফুলী নদীর মুখেই অবস্থিত এই সৈকত থেকে সূর্যাস্ত উপভোগ করতে পারবেন। প্রকৃতিপ্রেমীরা নগরের ব্যস্ততা থেকে মুক্তি পেতে এখানে আসেন বঙ্গোপসাগরের সৌন্দর্য উপভোগ করতে। দর্শনীয় এই পর্যটন স্পটটি বাংলাদেশ নেভাল একাডেমী এবং শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছেই অবস্থিত।

পতেঙ্গা সৈকতের প্রস্থ খুব বেশি নয় এবং এখানে সমুদ্রে সাঁতার কাটা ঝুঁকিপূর্ণ। সমুদ্র সৈকতজুড়ে ভাঙ্গন ঠেকাতে কংক্রিটের দেয়াল এবং বড় পাথরের খণ্ড রাখা হয়েছে। নব্বইয়ের দশকে সৈকতের আশেপাশে বেশকিছু রেস্টুরেন্ট এবং খাবারের দোকান স্থাপিত হয়েছে। সৈকতে বাতির ব্যবস্থা করায় রাতের বেলা ভ্রমনকারী পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত হয়েছে। সূর্যোদয় দেখার জন্য এখানে আসতে হলে আপনাকে খুব সকালে ঘুম থেকে উঠতে হবে।

কিভাবে যাবেন

চট্রগ্রাম শহরের কেন্দ্র থেকে প্রায় একঘণ্টায় বাস, টেম্পো অথবা অটোরিকশায় করে পতেঙ্গা সৈকতে পৌছাতে পারবেন।